এমপি বাদশার দাবি পূরণ করলেন প্রধানমন্ত্রী

152

করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে সুবিধাবঞ্চিত নন-এমপিও শিক্ষক-কর্মচারীদের প্রণোদনা দেয়ার দাবি জানিয়েছিলেন রাজশাহী সদর আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা। গত মঙ্গলবার (২৩ জুন) সংসদের বাজেট অধিবেশন বক্তৃতায় তিনি এ দাবি জানান।

Untitled-2-copy-9

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুই দিনের মধ্যে তার দাবি পূরণ করেছেন। বর্তমান পরিস্থিতিতে নন-এমপিও শিক্ষক-কর্মচারীদের সহায়তায় ৪৬ কোটি ৬৩ লাখ টাকা প্রণোদনা হিসেবে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এ অর্থ ৮০ হাজার ৭৪৭ জন শিক্ষক ও ২৫ হাজার ৩৮ জন কর্মচারীর মধ্যে বিতরণ করা হবে।

বাজেট বক্তব্যে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেছিলেন, বেসরকারি নন-এমপিও শিক্ষক-কর্মচারীরা বেতন পাচ্ছেন না। তাদের জন্য প্রণোদনার প্রস্তাব করছি। প্রস্তাব করছি বিশেষ তহবিলেরও, যার থেকে তাদের ঋণ দেয়া যাবে।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুন) শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এমপিওবিহীন শিক্ষকদের জন্য ৪৬ কোটি ৬৩ লাখ ৩০ হাজার টাকা প্রণোদনা হিসেবে বরাদ্দ দিয়েছেন। এ অর্থ এমপিও সুবিধা পাচ্ছে না এমন ৮০ হাজার ৭৪৭ জন শিক্ষক ও ২৫ হাজার ৩৮ কর্মচারীর মধ্যে বিতরণ করা হবে।

জানতে চাইলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মমিনুর রশিদ আমিন বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাবের ভিত্তিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের জন্য প্রণোদনা অর্থ অনুমোদন করেছেন। আমাদের কাছে এ অর্থ এখনও পৌঁছেনি।

তিনি বলেন, শিক্ষক-কর্মচারীদের তালিকা আমাদের কাছে রয়েছে। প্রণোদনার অর্থ এলে তা তাদের ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট নম্বরে পাঠিয়ে দেয়া হবে। এ অর্থ পেলে করোনা পরিস্থিতিতে কিছুটা হলেও তারা স্বস্তি পাবেন।

জানা গেছে, শিক্ষকদের এককালীন ৫ হাজার ও কর্মচারীদের দুই হাজার ৫০০ করে টাকা দেয়া হবে। শিগগিরই এ টাকা বিতরণ শুরু হবে। জেলা প্রশাসকদের মাধ্যমে ব্যানবেইসের তালিকায় থাকা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর নন-এমপিও শিক্ষকের তথ্য যাচাই করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

এদিকে নন-এমপিও শিক্ষক-কর্মচারীদের প্রণোদনা দেয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা। শিক্ষক-কর্মচারীদের পক্ষ থেকে তার প্রতি কৃতজ্ঞতাও জানিয়েছেন তিনি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.