জামায়াতের রাজনীতি করার অধিকার আছে: ফখরুল

42

জামায়াতে ইসলামীর রাজনীতি করার অধিকার আছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। মঙ্গলবার দুপুরে ঠাকুরগাঁও বালিয়াডাঙ্গী পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয় হলরুমে বিএনপির উপজেলা শাখার উদ্যোগে সব অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের সমন্বয়ে মতবিনিময় সভায় এ মন্তব্য করেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘জামায়াত  ইসলাম একটা রাজনৈতিক দল, তাদের রাজনীতি করার অধিকার আছে । আমাদের দেশ আমাদের সংবিধান সেটা তাদের দিয়েছে। সরকারি দলের চুনোপুঁটিরা রুই-কাতলা হয়ে গেছে। আমরা যারা সাধারণ মানুষ তারা গরিব থেকে আরো গরিব হয়ে যাচ্ছি। বাংলাদেশের দুর্ভাগ্য স্বাধীনতার ৫০ বছরেও আমরা এখন পর্যন্ত সরকার কীভাবে পরিবর্তন করব সেটাই ঠিক করতে পড়লাম না’।

করোনা এসে সরকারের ‘সুবিধা হয়েছে’ উল্লেখ করে তিনি বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী করোনায় দুই বছরে গণভবন থেকে বের হননি। সাধারণ মানুষ তো ঘরে বসে থাকলে চলবে না। সরকার ঘরে বসে থাকতেছে আর আমাদের হুঁশিয়ারি দিচ্ছে বাহিরে না বের হওয়ার। সভা সেমিনার কেউ করতে পারবা না, করলেই আবার গ্রেপ্তার করতেছে। তাই দেশকে বাঁচাতে, দেশের মানুষকে বাঁচাতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে’।

সবাইকে সংগঠিত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘নিজেদের ভুল-ত্রুটি ভুলে গিয়ে সংগঠিত হয়ে দুর্বার আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত হন’।

‘কটূক্তি করা বাদ দেন, মিথ্যাচার করা বাদ দেন, মানুষের সমস্যা সমাধান করার দিকে আসেন’ উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সরকারকে উদ্দেশ্য করে আরো বলেন, ‘ব্যর্থতার জন্য আওয়ামী লীগ সরকারকে পদত্যাগ করা উচিত । একটি সুষ্ঠু নির্বাচন কমিশন গঠন করুন যারা নিরপেক্ষ নিরপেক্ষ নির্বাচন দিয়ে দেশটাকে রক্ষা করবে। সাধারণ মানুষকে রক্ষা করুন না হলে এরাই আপনাদের ঘাড় ধরে নামাবে’।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘নিজেদের ভুলত্রুটি ভুলে গিয়ে সংগঠিত হয়ে দুর্বার আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত হন। সব কলেজে সংগঠন তৈরি করতে হবে। যুবক, ছাত্র, তরুণরা ছাড়া পরিবর্তন আসে না আর এরাই এই দেশে আন্দোলনের মাধ্যমে পরিবর্তন নিয়ে আসবে। আমরা এই দানব সরকারকে পরিবর্তন করতে সক্ষম হব’।

বিএনপির মহাসচিব পুলিশের সমালোচনা করে বলেন, ‘সরকার নয় বর্তমানে দেশের রাজা পুলিশ। পুলিশের কর্মকর্তাদের নামে কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি। পুলিশ নিজেই এখন চুরি করে, অপহরণ করে মানুষকে। পুলিশ তো গর্ব করে বলে এ সরকার কে জয়ী করেছে তারাই। তাই দেশকে বাঁচাতে, দেশের মানুষকে বাঁচাতে সকলকে ঐক্য হয়ে আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত থাকার জন্য বলেন তিনি’।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘জিয়াউর রহমানের সম্পর্কে সরকার অশ্লীল-অসভ্য ভাষায় কথা বলে, তার মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে কথা বলে, আরে জিয়াউর রহমান ঘোষণা না দিলে তো মুক্তিযুদ্ধই শুরু হতো না। জিয়াউর রহমান রণাঙ্গনে যুদ্ধ না করলে এ দেশ স্বাধীন হতো না  এটা বাস্তবতা। এ সমস্ত কটূক্তি করা বাদ দেন, মিথ্যাচার বাদ দেন মানুষের সমস্যা সমাধান করার  দিকে আসেন’।

‘আজকে যে আওয়ামী লীগ লুটপাট করছে এটা প্রতিরোধ না করতে পারলে দেশ তাঁবেদার রাষ্ট্রে পরিণত হবে। আওয়ামী লীগ সরকার বাংলাদেশে জনগণের প্রতিনিধিত্ব করা সরকার নয়। আওয়ামী লীগ সরকার আজকে তাঁবেদার সরকারে পরিণত হয়েছে। একটা পুতুল সরকারে পরিণত হয়েছে’।

মির্জা ফখরুল অভিযোগ করে বলেন, ‘সরকার করোনা নিয়ে ব্যবসা করেছে।  ২০ টাকার মাস্ক কিনেছে সাত শ থেকে আট শ টাকায়। টিকা না পাওয়ার জন্য আওয়ামী লীগের দুর্নীতি  দায়ী । প্রতিটি ক্ষেত্রেই আওয়ামী লীগ দুর্নীতি করছে। আমরা কখনো শুনিনি যে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি দুর্নীতি করেছে। তারা নিয়োগ বাণিজ্য করে। কিন্তু এখন করতেছে, কারণ সেখানে এখন আওয়ামী লীগের লোকদের নিয়ে গিয়ে বসাচ্ছে। যাব কোথায়? যে পুলিশের কাছে আমরা যাই চোর-ডাকাত ধরার জন্য ওরাই এখন চোর-ডাকাত হয়ে বসে আছে’।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান, সহসভাপতি আল মামুন আলম, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মির্জা ফয়সল আমিন, অর্থ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম শরিফ, বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা বিএনপির সভাপতি রাজিউর রহমান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক ডক্টর টি এম মাহবুবর রহমানসহ উপজেলা বিএনপির বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

তিন দিনের সাংগঠনিক সফরে এসে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বালিয়াডাঙ্গী ছাড়াও পীরগঞ্জ, রানীশংকৈল উপজেলা বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা করেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.