নিউইয়র্কে ট্রেনে কাটা পরে বাংলাদেশী ছাত্রীর মর্মান্তিক মৃত্যু

101

নিউইয়র্কে দূর্বৃত্তের ধাক্কায় ট্রেনে কাটা পরে বাংলাদেশী কলেজ ছাত্রীর মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটেছে। নিহতের নাম জিনাত হোসেন (২৪) গত বুধবার (১১ মে) দিবাগত আনুমানিক রাত ৯টার সময় ব্রæকলীনের এক সাবওয়ে (পাতাল ট্রেন) ষ্টেশনে সে ট্রেনে কাটা পরে মৃত্যুবরণ করেছেন। ঘটনার সময় দূবৃর্ত্তরা তাকে ধাক্কা দিয়ে ট্রেনের নিচে ফেলে দেয়। সাথে সাথে সে মারা যায় (ইন্না লিল্লাহি রাজিউন)।

জিনাত হোসেনের স্বজন ও শুভাকাঙ্খীদের কাছ থেকে এসব তথ্য জানা গেছে। পুলিশ বলছে ঘটনার তদন্ত চলছে। জানা গেছে, নিহত জিনাত হোসেন বৃহত্তর কুমিল্লা সমিতির সভাপতি ডা. মোহাম্মদ ইনামুল হকের ভায়রা ভাই আমীর হোসেনের কন্যা। তাদের দেশের বাড়ী কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি উপজেলার জগতপুর গ্রাম। জিনাত ২০১৫ সালে মা-বাবার সাথে যুক্তরাষ্ট্রে আভিবাসী হন। সে ব্রæকলীনের নাইথ এভিনিউতে পরিবারের সাথে বসাবাস করতো। ঘটনার সময় সে নিউইয়র্ক সিটির হান্টার কলেজ থেকে বাসায় ফিরছিলো। তার এই মর্মান্তিক মৃত্যুতে কমিউনিটিতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। উদ্বেগ বেড়েছে অভিভাবকদের মাঝে। কেননা, বিপুল সংখ্যক স্কুল-কলেজ ছাত্র-ছাত্রীকে প্রতিদিন সাবওয়েতে (পাতাল ট্রেন) চলা করতে হয়।

এদিকে একই দিন (বুধবার) দুপুরে নিউইয়র্কের জ্যামাইকায় ছিনতাই করে পালিয়ে যাবার সময় ছিনতাইকারীর ধাক্কায় আহত গুরুতর হয়েছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন ভূঁইয়া। ঘটনার পর পরই অ্যাম্বুলেন্স এসে তাকে নিয়ে গিয়ে স্থানীয় কুইন্স জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেছে। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তিনি লাইফ সাপোর্টে রয়েছেন। তার কন্যা দুলালী মিডিয়াকে জানান, বাবার (ডাক্তারের কথামত) বেঁচে থাকার সম্ভাবনা একেবারেই ক্ষীণ। তবে পুলিশ ছিনতাইকারী কৃষ্ণাঙ্গ যুবককে ইতিমধ্যে গ্রেফতার করেছে। মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন ভূঁইয়ার দেশের বাড়ী ভোলা। তিনি বিগত ৩২ বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করছেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.