বরাদ্দ কমছে রেমিট্যান্সের প্রণোদনায়

13

করোনার মধ্যেও প্রবাসী আয়ে বড় ধরনের উল্লম্ফন থাকায় এ খাতের নগদ প্রণোদনার বরাদ্দ কমানোর প্রস্তাব দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে আসন্ন ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটে রেমিট্যান্সের ওপর নগদ প্রণোদনায় ৪ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করেন তিনি। তবে রেমিট্যান্সের প্রণোদনায় বর্তমানে এর থেকে বেশি ব্যয় করছে সরকার।

চলতি অর্থবছরের সংশোধনী বাজেটে এ খাতের প্রণোদনার বরাদ্দ ৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকায় উন্নীত করা হয়েছে। মূল বাজেটে এই বরাদ্দের পরিমাণ ছিল ৩ হাজার ৬০ কোটি টাকা।

ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স বাড়াতে ২০১৯-২০ অর্থবছর থেকে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা দিয়ে আসছে সরকার। ওই অর্থবছরে প্রথম এ খাতের প্রণোদনার জন্য ৩ হাজার ৬০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখে সরকার। তবে প্রণোদনার সুফল হিসেবে রেমিট্যান্স বাড়তে থাকায় চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের সংশোধনী বাজেটে এ খাতের বরাদ্দ ৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকা করা হয়। সেই হিসেবে আগামী ২০২১-২২ অর্থবছরে সরকার রেমিট্যান্সের প্রণোদনা কমানোর পরিকল্পনা করছে বলে মনে করছেন অর্থনীতি বিশ্লেষকরা।

তবে অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, রেমিট্যান্সের প্রণোদনার হার কমবে না। কোনো কোনো ক্ষেত্রে রেমিট্যান্সের অঙ্কের সীমা কমিয়ে আনা হতে পারে। অর্থাৎ বড় অঙ্কের রেমিট্যান্সের ওপর যাতে বেশি প্রণোদনা না যায় সে জন্য বিদ্যমান সীমা কমিয়ে আনা হতে পারে।

বর্তমানে ৫ হাজার ডলার পর্যন্ত রেমিট্যান্সের ওপর কোনো ধরনের কাগজপত্র জমা ছাড়াই ২ শতাংশ প্রণোদনা দিচ্ছে সরকার। এর বেশি রেমিট্যান্স পাঠালে এ-সংক্রান্ত কাগজপত্র জমা সাপেক্ষে প্রণোদনা দেওয়া হচ্ছে। ফলে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে রেমিট্যান্স ও বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম ১১ মাসে (জুলাই-মে) ২ হাজার ২৮৩ কোটি ডলারের সমপরিমাণ রেমিট্যান্স পাঠান প্রবাসীরা- যা এর আগের ২০১৯-২০ অর্থবছরের একই সময়ে আসা রেমিট্যান্সের তুলনায় ৩৯ দশমিক ৪৯ শতাংশ বেশি।

২০১৯-২০ অর্থবছরের জুলাই থেকে মে মাস পর্যন্ত দেশে রেমিট্যান্স এসেছিল ১ হাজার ৬৩৭ কোটি ৭০ লাখ ডলার।

গত মে মাসে ২১৭ কোটি ডলার রেমিট্যান্স পাঠান প্রবাসীরা, যা এখন পর্যন্ত এক মাসে আসা দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স। গত বছরের জুলাইয়ে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছিল, ২৫৯ কোটি ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা বলছেন, কোনো কোনো ব্যাংক সরকারের ২ শতাংশ প্রণোদনার সঙ্গে আরও ১ শতাংশ যোগ করে মোট ৩ শতাংশ প্রণোদনা দিচ্ছে। এটা রেমিট্যান্স বাড়াতে বড় ধরনের ভ‚মিকা রেখেছে।

এদিকে রেমিট্যান্স বাড়ায় দেশের বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভও বাড়ছে। গত ১ মে বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ দ্বিতীয়বারের মতো ৪ হাজার ৫০০ কোটি (৪৫ বিলিয়ন) ডলারের ঘর অতিক্রম করে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.